যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় স্থায়ী হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে – সত্যের সন্ধানে
  ফেনী    ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ        দুপুর ১:০৭
  •   মেনু নির্বাচন করুন
  •   বাংলাদেশ
  •   রাজনীতি
  •   বাণিজ্য
  •   আন্তর্জাতিক
  •   খেলা
  •   বিনোদন
  •   লাইফস্টাইল
  •   জীবনযাপন
  •   ফিচার ক্রোড়পত্র
  •   শিক্ষা
  •   ধর্ম
  •   ছবি
  •   ভিডিও
  •   চাকরি
  •   মতামত
  •   করোনাভাইরাস
  •   ই পেপার
  •   জাতীয়
  •   রাজনীতি
  •   অর্থনীতি
  •   জেলার সংবাদ
  •   অপরাধ
  •   রাজধানী
  •   আমেরিকা
  •   ভারত
  •   পাকিস্তান
  •   এশিয়া
  •   ইউরোপ
  •   আরব
  •   অন্যান্য
  •   ক্রিকেট
  •   ফুটবল
  •   অন্যান্য খেলা
  •   সংস্কৃতি
  •   অন্যান্য
  •   সাক্ষাৎকার
  •   সম্পাদকীয়
  •   বিতর্ক
  •   সমাজ
  •   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  •   দর্ষণ
  •   কৃষি
  •   নির্বাচন
  •   জাতীয়
  •   জেলা সংবাদ
  •   দুর্ঘটনা
  •   রূপগঞ্জে
  •   সন্ধান চেয়ে
  •   ঠাকুরগাঁওয়ে
  •   ফুলগাজী
  •   নারায়ণগঞ্জ
  •   ভারতে পাচার
  •   পাটগ্রাম বুড়িমারী লালমনিরহাট
  •   উঠান বৈঠক
  •   সেনবাগ
  •   ইউনিয়ন অব হিউম্যানিটি ফাউন্ডেশন
  •   ফেণী
  •   নোয়াখলী
  •   COVID-19
  •   হত্যা
  •   জয়নাল আবেদিন হাজারী
  • যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় স্থায়ী হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে-সত্যের সন্ধানে নিউজ
    তারিখ - সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০ আন্তর্জাতিক
    এডিটর - সুমন পাটোয়ারী

    সংবাদ- আশফাল আহম্মেদ রাফি:– সারা বিশ্বে রয়েছে কানাডার জনপ্রিয়তা। সম্প্রতি মার্কিনিদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডার নাগরিক হওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। বিশেষ করে ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর মার্কিন নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাসে আবেদনের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে।২০১৫ সালের তুলনায় ২০২০ সালের প্রথম আট মাসে কানাডায় এ সংক্রান্ত আবেদনের সংখ্যা বেড়ে যায় দুই হাজার। একটি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্র থেকে কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য আবেদন করেছিলেন ৬ হাজার ৮০০ জন। ২০১৬ সালে সেটি ৭ হাজার ৭০০-এর বেশি। ২০১৭ সালে আরও একটু বেড়ে হয় ৯ হাজার। আর ২০২০ সালের আগস্ট পর্যন্ত মার্কিন নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় আসার জন্য আবেদন করেছেন ৮ হাজার ৭০০ জন। উল্লেখ্য, আয়তনের দিক থেকে কানাডা ৯ হাজার ৯৮৫ মিলিয়ন কিলোমিটার হলেও জনসংখ্যা মাত্র ৩৬ মিলিয়ন। যার রয়েছে ১০টি প্রভিন্স এবং ৩টি টেরিটোরিজ। ১৯৭১ সালে কানাডাই বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ঘোষণা দেয় মাল্টিকালচারিজমের, যার মূলমন্ত্র হলো সব নাগরিকের থাকবে সমান অধিকার ও দায়িত্ব। যার ফলে দেশটির জন্মলগ্ন থেকে এ পর্যন্ত ১৭ মিলিয়নের বেশি লোক অভিবাসী হয়ে দেশটিতে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। কানাডা শান্তি রক্ষায় সবসময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। কানাডার ইমিগ্রেশন সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, বছরপ্রতি প্রায় আড়াই লাখ অভিবাসনপ্রত্যাশী পাড়ি দেন কানাডায়। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, কানাডার বিচারব্যবস্থা, নির্বাচনী প্রক্রিয়া, শিক্ষাব্যবস্থা, চিকিৎসা যোগাযোগব্যবস্থা, জীবনের নিরাপত্তা, স্থিতিশীল অর্থনীতি, শক্তিশালী ব্যাংকিং ব্যবস্থার কারণে দেশ হিসেবে বিশ্বের সবার কাছে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে কানাডায় ইমিগ্রেশন নিতে চায় এমন অনেক কারণ রয়েছে। যেমন, তাদের পরিবারগুলোর জন্য আরও ভালো ভবিষ্যৎ তৈরি করা, একটি ভালো কাজের-জীবন ভারসাম্য তৈরি করা, তাদের পড়াশোনা আরও বাড়ানো বা কেবল শহর জীবনের ঝামেলা থেকে বাঁচার জন্য। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কানাডায় অভিবাসনের জন্য যে কোনও ব্যক্তিগত কারণেই বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে পাড়ি জমানোর চেয়ে যুক্তরাষ্ট্র থেকে কানাডায় চলে যাওয়া অনেক সহজ। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় স্থায়ী হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে । সংবাদ- আশফাল আহম্মেদ রাফি:– সারা বিশ্বে রয়েছে কানাডার জনপ্রিয়তা। সম্প্রতি মার্কিনিদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডার নাগরিক হওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। বিশেষ করে ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর মার্কিন নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাসে আবেদনের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে।২০১৫ সালের তুলনায় ২০২০ সালের প্রথম আট মাসে কানাডায় এ সংক্রান্ত আবেদনের সংখ্যা বেড়ে যায় দুই হাজার। একটি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্র থেকে কানাডায় স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য আবেদন করেছিলেন ৬ হাজার ৮০০ জন। ২০১৬ সালে সেটি ৭ হাজার ৭০০-এর বেশি। ২০১৭ সালে আরও একটু বেড়ে হয় ৯ হাজার। আর ২০২০ সালের আগস্ট পর্যন্ত মার্কিন নাগরিকত্ব ছেড়ে কানাডায় আসার জন্য আবেদন করেছেন ৮ হাজার ৭০০ জন। উল্লেখ্য, আয়তনের দিক থেকে কানাডা ৯ হাজার ৯৮৫ মিলিয়ন কিলোমিটার হলেও জনসংখ্যা মাত্র ৩৬ মিলিয়ন। যার রয়েছে ১০টি প্রভিন্স এবং ৩টি টেরিটোরিজ। ১৯৭১ সালে কানাডাই বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ঘোষণা দেয় মাল্টিকালচারিজমের, যার মূলমন্ত্র হলো সব নাগরিকের থাকবে সমান অধিকার ও দায়িত্ব। যার ফলে দেশটির জন্মলগ্ন থেকে এ পর্যন্ত ১৭ মিলিয়নের বেশি লোক অভিবাসী হয়ে দেশটিতে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। কানাডা শান্তি রক্ষায় সবসময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। কানাডার ইমিগ্রেশন সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, বছরপ্রতি প্রায় আড়াই লাখ অভিবাসনপ্রত্যাশী পাড়ি দেন কানাডায়। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, কানাডার বিচারব্যবস্থা, নির্বাচনী প্রক্রিয়া, শিক্ষাব্যবস্থা, চিকিৎসা যোগাযোগব্যবস্থা, জীবনের নিরাপত্তা, স্থিতিশীল অর্থনীতি, শক্তিশালী ব্যাংকিং ব্যবস্থার কারণে দেশ হিসেবে বিশ্বের সবার কাছে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছে। অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে কানাডায় ইমিগ্রেশন নিতে চায় এমন অনেক কারণ রয়েছে। যেমন, তাদের পরিবারগুলোর জন্য আরও ভালো ভবিষ্যৎ তৈরি করা, একটি ভালো কাজের-জীবন ভারসাম্য তৈরি করা, তাদের পড়াশোনা আরও বাড়ানো বা কেবল শহর জীবনের ঝামেলা থেকে বাঁচার জন্য। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কানাডায় অভিবাসনের জন্য যে কোনও ব্যক্তিগত কারণেই বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে পাড়ি জমানোর চেয়ে যুক্তরাষ্ট্র থেকে কানাডায় চলে যাওয়া অনেক সহজ। কানাডার ক্যালগেরির ব্যবসায়ী আব্দুল্লা রফিক বলেন, বসবাসের জন্য কানাডা একটি চমৎকার জায়গা, যা সারা পৃথিবীতে স্বীকৃত। পৃথিবী নামক গ্রহের এমন কোনো দেশ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর, যেখান থেকে মানুষ কানাডাতে এসে আবাস গড়েনি। সর্বত্র চতুর্দিকে মাল্টিকালচারের প্রভাব দৃশ্যমান। মার্কিন নাগরিকদের স্থায়ীভাবে বসবাসের কানাডায় আসার অনেকগুলো কারণের মধ্যে সরকারের ব্যবসাবান্ধব নীতি অন্যতম, সহজ ওয়ান স্টপ সার্ভিস উল্লেখযোগ্য। উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মো. মাহমুদ হাসান অভিমত প্রকাশ করে বলেন, ট্রাম্প সরকারের শুরু থেকেই বহুজাতিক সংস্কৃতির প্রতি তার বিরূপ সমালোচনা এবং ধর্মনিরপেক্ষতা ও বিভিন্ন ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রতি তার আক্রমণাত্মক মনোভাব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী অনেক শান্তিপ্রিয় মানুষের মনে হতাশা তৈরি করে। সেইসঙ্গে ইমিগ্র্যান্টদের প্রতি তার বৈষম্যমূলক দৃষ্টিভঙ্গি, চিকিৎসা বীমায় সরকারি সহায়তার ক্ষেত্রে নানাবিধ শর্তারোপ, বর্ণবাদী ধারার ক্রমউত্থান এক বিরাট সংখ্যক জনগোষ্ঠীর মনে বিকল্প অনুসন্ধানের সুযোগ তৈরি করে। এরই ফলশ্রুতিতে প্রতিবেশী কল্যাণ রাষ্ট্র কানাডাই তাদের প্রাধিকার তালিকায় শীর্ষে স্থান পায়।

    আপনার মন্তব্য লিখুন
  •   ফেনীতে ১০ কেজি গাঁজাসহ আটক-১
  •   সোনাগাজীতে নির্মাণাধীন আশ্রয়ণ কেন্দ্রে কর্তৃপক্ষের অবহেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক কৃষকের মৃত্যুর অভিযোগ
  •   রূপগঞ্জে মাদক বিরোধী কর্মশালা মতবিনিময় সভা
  •   নারায়ণগঞ্জ জেলা জিয়া মঞ্চের পরিচিতি সভা
  •   সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যা কবলিত মানুষের পাশে কাশিনগর ওরা ১১ জন সংঘ
  •   সোনাগাজী হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা: ফারহানার বিরুদ্ধে রোগীর লিখিত অভিযোগ
  •   শিশু আফরা হত্যার দায় স্বীকার করে
    আদালতে ঘাতকের জবানবন্দি
  •   রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী
  •   সেতু মন্ত্রী’র নির্বাচনীয় এলাকা কবিরহাট উপজেলায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে আনন্দ র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
  •   স্বামী ও দুই সন্তান রেখে পরকীয়া প্রেমিকের ঘরে মৌসুমী! বিয়ে না করলে আত্মহত্যার হুমকী
  •   ফেনীর দাগনভূঁঞায় ৬ বছরের এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর ফাঁস দিয়ে হত্যার অভিযোগ
  •   পদ্মা সেতু উদ্বোধনে
    রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব
    সভা ॥ শোভাযাত্রা
  •   সোনাগাজী স্বেচ্ছায় রক্তদান ফাউন্ডেশন’র কমিটি গঠন,
  •   সোনাগাজী মোশারফ হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
  •   ফেনীতে করোনা সংক্রমন রোধে জেলা প্রশাসনের মাস্ক বিতরণ
  •   ২৮ জুন থেকে ১৯ দিনের লম্বা ছুটিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়
  •   পদ্মা সেতুর শুভ উদ্ভোদন উপলক্ষে আলোকসজ্জায় সজ্জিত ধানশালিক ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়।
  •   ৪৮ লক্ষ টাকার ত্রাণসামগ্রী নিয়ে বানভাসি সিলেটের পথে বেওয়ারিশ সেবা ফাউন্ডেশন।
  •   রূপগঞ্জের মারহাবা এগ্রোতে
    হাজার কেজির ‘কালা চাঁদ’
  •   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের পদ্মা সেতু উপহার দিয়েছেন; মন্ত্রী গাজী











  • উপদেষ্টা : দিদারুল কবির রতন
    পৃষ্টপোষক : জসিম উদ্দিন লিটন
    ব্যবস্থাপনা পরিচালক : ফারুক আহমেদ সুমন
    সহ ব্যবস্থাপনা পরিচালক: মো: শাহ আলম
    সম্পাদক ও প্রকাশক : সুমন পাটোয়ারী
    অফিস : লিটন ব্রাদার্স ফাজিলের ঘাট-রোড দাগনভূঞা, ফেনী
    ফোন: 01816284600


    জসিম উদ্দিন লিটন
    উপদেষ্টা

    সুমন পাটোয়ারী
    সম্পাদক ও প্রকাশক


    বি:দ্রি:-উক্ত অনলাইন পোর্টালটির সকল পেপার্সের কার্যাদি প্রক্রিয়াধীন আছে।
    © 2021. sottersondhanenews.com All Right Reserved.
    Developed By   SoftwareFarm BD
    উপরে যান