বঙ্গবন্ধু’ উপাধির আজ ৫২ বছর. – সত্যের সন্ধানে
  ফেনী    ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ        সকাল ১০:৪৮
  •   মেনু নির্বাচন করুন
  •   বাংলাদেশ
  •   রাজনীতি
  •   বাণিজ্য
  •   আন্তর্জাতিক
  •   খেলা
  •   বিনোদন
  •   লাইফস্টাইল
  •   জীবনযাপন
  •   ফিচার ক্রোড়পত্র
  •   শিক্ষা
  •   ধর্ম
  •   ছবি
  •   ভিডিও
  •   চাকরি
  •   মতামত
  •   করোনাভাইরাস
  •   ই পেপার
  •   জাতীয়
  •   রাজনীতি
  •   অর্থনীতি
  •   জেলার সংবাদ
  •   অপরাধ
  •   রাজধানী
  •   আমেরিকা
  •   ভারত
  •   পাকিস্তান
  •   এশিয়া
  •   ইউরোপ
  •   আরব
  •   অন্যান্য
  •   ক্রিকেট
  •   ফুটবল
  •   অন্যান্য খেলা
  •   সংস্কৃতি
  •   অন্যান্য
  •   সাক্ষাৎকার
  •   সম্পাদকীয়
  •   বিতর্ক
  •   সমাজ
  •   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  •   দর্ষণ
  •   কৃষি
  •   নির্বাচন
  •   জাতীয়
  •   জেলা সংবাদ
  •   দুর্ঘটনা
  •   রূপগঞ্জে
  •   সন্ধান চেয়ে
  •   ঠাকুরগাঁওয়ে
  •   ফুলগাজী
  •   নারায়ণগঞ্জ
  •   ভারতে পাচার
  •   পাটগ্রাম বুড়িমারী লালমনিরহাট
  •   উঠান বৈঠক
  •   সেনবাগ
  •   ইউনিয়ন অব হিউম্যানিটি ফাউন্ডেশন
  •   ফেণী
  •   নোয়াখলী
  •   COVID-19
  •   হত্যা
  •   জয়নাল আবেদিন হাজারী
  • বঙ্গবন্ধু’ উপাধির আজ ৫২ বছর.-সত্যের সন্ধানে নিউজ
    তারিখ - ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২১ জেলা সংবাদ
    এডিটর - সুমন পাটোয়ারী

    মোহাম্মদ হাসানঃ বাঙালি জাতির জন্যে ২৩ ফেব্রুয়ারি এক গুরুত্বপূর্ণ দিন। ১৯৬৯ সালের এ দিনে বাংলাদেশের জনগণ শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধি দিয়েছিলেন। আজ পূর্ণ হলো বঙ্গবন্ধু উপাধির ৫২ বছর। পরে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে মহান নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাঙালিরা তাদের সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করে স্বাধীনতা অর্জন করে। একদিনে আসেনি বঙ্গবন্ধু উপাধি। তার পেছনে রয়েছে শেখ মুজিবুর রহমানের ১৩ বছর জনগণের মুক্তির জন্য পাকিস্তান জেলে থাকার ঘটনা। বিশ্বের কোনও নেতা জনগণের জন্যে এত ত্যাগ স্বীকার করেননি। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি হিসেবে কারাগারে বন্দী ছিলেন বঙ্গবন্ধু। তিনি ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি কারাগার থেকে মুক্তি পান। ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি হিসেবে কারাগারে বন্দী থেকে মুক্তি পান। আগরতলা মামলা থেকে সবে মাত্র মুক্তি লাভ করে ফিরে আসা শেখ মুজিবুর রহমানকে ২৩ ফেব্রুয়ারি গণসংবর্ধনা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। আর সে গণসংবর্ধনায় শেখ মুজিবুর রহমানকে কী উপাধিতে ভূষিত করা হবে তা নিয়ে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। গণসংবর্ধনায় উপাধি প্রদান নিয়ে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতারা আলোচনায় বসেছিলেন। তখন ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হয়েছিল। সমগ্র জাতি ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বের প্রতি আস্থা স্থাপন করেছিলো। যে মানুষটি শুধুমাত্র পূর্ব বাংলার মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি এবং রাজনৈতিক স্বাধীনতা, স্বাধিকারের জন্য তার জীবনের মূল্যবান গুরুত্বপূর্ণ সময় জেলে কাটিয়েছেন; অকুতোভয় যার প্রতিটি উচ্চারণ, তাকে গণ উপাধিতে ভূষিত করার বিষয় সময়ের দাবি হয়ে দাঁড়িয়েছিল। ঐতিহাসিক কারণেও উপাধি দেয়া ছিলো ছাত্র-সংগ্রাম পরিষদের কর্তব্য। সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল শেখ মুজিবুর রহমানকে নতুন নামে উপাধিতে ভূষিত করার। অনেক নামে তাকে ডাকা হতো। বাংলার নয়নমণি, বঙ্গশার্দুল, অবিসংবাদিত নেতা, বাঙালির মুক্তিদাতাসহ বিভিন্ন নামে ভূষিত করা হলেও অর্পূণ ছিল জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের উপাধি। আর সে অপূর্ণতা পূরণ হয় ২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯। আর ইতিহাস হয়ে গেল সেদিনের তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানের (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ আয়োজিত গণসংবর্ধনা সমাবেশ। এদিন বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনের আপোষহীন নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে ভূষিত করা হয় নতুন উপাধিতে। আগরতলা মামলা থেকে মুক্তি লাভের পর রেসকোর্স ময়দানে শেখ মুজিবুর রহমানকে দেয়া সে গণসংবর্ধনায় দশ লাখেরও বেশি মানুষের রায় নিয়ে তৎকালীন ডাকসুর ভিপি ও সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ ঘোষণা করেন ‘আজ থেকে তিনি আমাদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’। ইতিপূর্বেই আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমাদের সকলের কাছেই বেশ ভালো লাগলো। আমরা সকলেই একমত হলাম। ‘বঙ্গবন্ধু’ শব্দটির অর্থ সে কি বিশাল! তিনিই বঙ্গবন্ধু যিনি ভালোবাসেন, শুধু ভালোবাসেন না ভালোবাসার জন্য আপোষহীন আমৃত্যু সংগ্রাম করেন, যার ভালোবাসা নির্লোভ-নিঃস্বার্থ। শেখ মুজিবুর যখন বঙ্গবন্ধু তখন তিনি হয়ে ওঠেন বাংলার প্রকৃতির বন্ধু, বাংলার ভাষা কৃষ্টি সংস্কৃতির বন্ধু, বাঙালি জাতীয়তাবাদের বন্ধু, জাতীয়তাবোধের বন্ধু, মুক্তিসংগ্রামের বন্ধু সুতরাং একমাত্র শেখ মুজিবুর রহমানই ‘বঙ্গবন্ধু’। ওই বৈঠক থেকে আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেই আমরা আমাদের নেতাকে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করবো।’ ১৯৬৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন রেসকোর্স (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) ময়দানে সেদিন লাখ লাখ জনতার ঢল নেমেছিল। কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ আয়োজিত সে বিশাল গণসংবর্ধনায় সভাপতির বক্তব্যে দিতে দাঁড়ালেন তৎকালীন ডাকসুর সভাপতি, শেখ মুজিবের একনিষ্ঠ সহচর তোফায়েল আহমেদ। তিনি জনগণের কাছে প্রশ্ন করলেন, যে নেতা তার যৌবনে কাটিয়েছেন কারাগারে, মৃত্যু ভয় যার কাছে ছিল তুচ্ছ; যে নেতা বলেছেন, আমি ক্ষুদিরামের বাংলার মুজিব, সূর্যসেনের বাংলার মুজিব; যিনি বলেছিলেন বাংলার মানুষের জন্য আমি হাসিমুখে জীবন দিতে পারি… সেই নেতাকে কী আমরা একটি উপাধি দিয়ে বরণ করতে পারি? তিনি আরও মাইকে ঘোষণা করেন, ‘কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতি ঋণের বোঝা হালকা করতে চায়। জাতির পক্ষ থেকে প্রিয় নেতাকে উপাধি দিতে চাই।’ রেসকোর্স ময়দান প্রকম্পিত করে প্রায় ১০ লাখ মানুষ দু’হাত তুলে সমর্থন করেন তাকে। সে সময়ে তোফায়েল আহমেদ বলেছিলেন, বাঙালির শ্রেষ্ঠ সন্তান হাজার বছরের মহাপুরুষ, লাঞ্চিত-বঞ্চিত বাঙালির নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করলাম। আজ থেকে তিনি আমাদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান…। লক্ষ কণ্ঠে প্রতিধ্বনিত হলো জয় বঙ্গবন্ধু…। তারপর তোফায়েল আহমেদ বলেন, এবার বক্তৃতা করবেন আমাদের প্রিয় নেতা ‘বঙ্গবন্ধু’ শেখ মুজিবুর রহমান। সে সময় বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতাও ঘোষণা করা হয়। তখন বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা রূপে আত্মপ্রকাশ করেন শেখ মুজিবুর রহমান। পরে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে মহান নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাঙালিরা তাদের সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করে স্বাধীনতা অর্জন করে। নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসু, রবীন্দ্রনাথ যাকে মহাত্মা উপাধি দিয়েছিলেন সেই মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশ, শেরে বাংলা একে ফজলুল হকসহ পৃথিবীতে অনেকেই বিভিন্ন সময় বিভিন্ন উপাধি পেয়েছেন। কিন্তু ফাঁসির মঞ্চ থেকে মুক্ত হয়ে, গণমানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে, এমন আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে কেউ উপাধি পাননি। এরপর থেকেই জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান হয়ে গেলেন বাঙালির প্রিয় ‘বঙ্গবন্ধু’।

    আপনার মন্তব্য লিখুন
  •   শিশু আফরা হত্যার দায় স্বীকার করে
    আদালতে ঘাতকের জবানবন্দি
  •   রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী
  •   সেতু মন্ত্রী’র নির্বাচনীয় এলাকা কবিরহাট উপজেলায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে আনন্দ র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
  •   স্বামী ও দুই সন্তান রেখে পরকীয়া প্রেমিকের ঘরে মৌসুমী! বিয়ে না করলে আত্মহত্যার হুমকী
  •   ফেনীর দাগনভূঁঞায় ৬ বছরের এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর ফাঁস দিয়ে হত্যার অভিযোগ
  •   পদ্মা সেতু উদ্বোধনে
    রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব
    সভা ॥ শোভাযাত্রা
  •   সোনাগাজী স্বেচ্ছায় রক্তদান ফাউন্ডেশন’র কমিটি গঠন,
  •   সোনাগাজী মোশারফ হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
  •   ফেনীতে করোনা সংক্রমন রোধে জেলা প্রশাসনের মাস্ক বিতরণ
  •   ২৮ জুন থেকে ১৯ দিনের লম্বা ছুটিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়
  •   পদ্মা সেতুর শুভ উদ্ভোদন উপলক্ষে আলোকসজ্জায় সজ্জিত ধানশালিক ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়।
  •   ৪৮ লক্ষ টাকার ত্রাণসামগ্রী নিয়ে বানভাসি সিলেটের পথে বেওয়ারিশ সেবা ফাউন্ডেশন।
  •   রূপগঞ্জের মারহাবা এগ্রোতে
    হাজার কেজির ‘কালা চাঁদ’
  •   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের পদ্মা সেতু উপহার দিয়েছেন; মন্ত্রী গাজী
  •   স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অফ বাউরা কমিটির পূর্ণাঙ্গ অনুমোদন ঘোষণা
  •   রায়গঞ্জে বাংলাদেশ আঃলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
  •   রায়গঞ্জে বাংলাদেশ আঃলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
  •   চিলমারীতে পুকুরের পানিতে ডুবে এক যুবকের মৃত্যু।
  •   লালমনিরহাটে পুলিশ জাদুঘর উদ্বোধন করলেন পুলিশ আইজিপি
  •   আমরা এসেছি আপনাদের জন্য মানবিক উপহার নিয়ে- ফেনীর পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন











  • উপদেষ্টা : দিদারুল কবির রতন
    পৃষ্টপোষক : জসিম উদ্দিন লিটন
    ব্যবস্থাপনা পরিচালক : ফারুক আহমেদ সুমন
    সহ ব্যবস্থাপনা পরিচালক: মো: শাহ আলম
    সম্পাদক ও প্রকাশক : সুমন পাটোয়ারী
    অফিস : লিটন ব্রাদার্স ফাজিলের ঘাট-রোড দাগনভূঞা, ফেনী
    ফোন: 01816284600


    জসিম উদ্দিন লিটন
    উপদেষ্টা

    সুমন পাটোয়ারী
    সম্পাদক ও প্রকাশক


    বি:দ্রি:-উক্ত অনলাইন পোর্টালটির সকল পেপার্সের কার্যাদি প্রক্রিয়াধীন আছে।
    © 2021. sottersondhanenews.com All Right Reserved.
    Developed By   SoftwareFarm BD
    উপরে যান